এই দেশের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ছিল, থাকবে : বাবুনগরী

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি : সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দিয়ে ধর্মনিরপেক্ষতা লেখা চালু করার দাবিতে মাইনরিটি সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি অশোক কুমার সাহার পক্ষে সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী অশোক কুমার ঘোষের লিগ্যাল নোটিশ পাঠানোর ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে হেফাজত মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী এ নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান ।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের মতো একটি মীমাংসিত ইস্যুতে নতুন করে বিতর্ক তৈরি করে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার লক্ষে তথাকথিত “মাইনরিটি সংগ্রাম পরিষদ” এর সভাপতি অশোক কুমার সাহা এই লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন বলে আমরা মনে করি। রাষ্ট্রধর্ম ইস্যুটি ২০১৬ সালে মাননীয় আদালত মীমাংসা করে দিয়েছেন। তাই এই বিষয়ে নতুন করে বিতর্ক তোলার কোনো যৌক্তিকতা নেই।’

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী আরও বলেন, ‘আমাদের ধারণা, এটিকে ইস্যু বানিয়ে দেশের পরিস্থিতি ঘোলাটে করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে ইসলাম ও দেশ বিরোধী শক্তি। তাই সংশ্লিষ্ট মহলকে কালবিলম্ব না করে অতি দ্রুত ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জোর দাবি জানাচ্ছি।’

সরকারের প্রতি আমাদের আহ্বান জানিয়ে এ হেফাজত নেতা বলেন, ‘যারা এই দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের ধর্মীয় আবেগ-অনুভূতি নিয়ে তামাসা করতে চায়, তাদের কঠোর হস্তে দমন করুণ। মীমাংসিত ইস্যুতে নতুন করে বিতর্ক তুলে কারা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায়, তা খুঁজে বের করুন। অন্যথায় দেশের তৌহিদী জনতা পূর্বের ন্যায় মাঠে নেমে আসবে।’

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, ‘ইসলাম বিরোধী ষড়যন্ত্রকারী কুচক্রী মহলকে উদ্দেশ্যে বলতে চাই, এই দেশ মুসলমানের দেশ। এই দেশের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ছিল, ইসলামই থাকবে, ইনশা আল্লাহ। এই দেশের মাটিতে জন্ম নিয়ে, এই দেশের খেয়ে পরে বেড়ে উঠে এই দেশেরই বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করবেন না। তৌহিদী জনতা তা বরদাশত করবে না। রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাংলাদেশের মাইনরটিদের জন্য কোনোকালেই সমস্যা ছিল না, আগামীতেও সমস্যার কারণ হবে না। অযথা ষড়যন্ত্র থেকে বিরত থাকুন। না হয় দেশের আপামর তৌহিদী দেশপ্রেমী জনতা আপনাদের উপযুক্ত জবাব দেবে।’

     আরো পড়ুন....

পুরাতন খবরঃ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
error: ধন্যবাদ!