প্রশংসায় ভাসছে এসআই শাহিন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে হত্যাকারীকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আটক

মো.জাকির হোসেন :
কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার ছত্রখীল পুলিশ ফাঁড়ির আইসি শাহিন কাদির। মামলা সংক্রান্ত কাজে ৬ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার রাতে যাচ্ছিলেন দাউদকান্দিতে। ব্যস্ততম জাতীয় মহাসড়কটিতে চলাচল করছিল অসংখ্য যানবাহন। রাত আনুমানিক দেড়টায় তাকে বহনকারী প্রাইভেটকারটি চান্দিনার গোবিন্দপুর এলাকা অতিক্রমকালে হঠাৎ সামনে থাকা পিকআপে চিৎকারের আওয়াজ শুনতে পায়। পরক্ষলেই দেখলেন একদল সশস্ত্র লোক সামনে থাকা পিকআপ এর দু’জন যাত্রীকে ধারালো অস্ত্রের আঘাত করে লুট করছে মালামাল। নিজের কর্মস্থলের কথা বিবেচনায় না এনেই তাদের রক্ষার্থে নিজের গাড়ি থামিয়ে প্রতিরোধে এগিয়ে আসেন এসআই মোহাম্মদ শাহিন কাদির। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন সশস্ত্র ছিনতাইকারীদের উপর। একসময় পিছু হটে ছিনতাইকারীরা। তবে আটকে ফেলেন সুজন (২৫) নামের একজনকে। এরপর আহত দু’জনকে উদ্ধার করে নিয়ে আসেন চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তফাজ্জল হোসেন (৩৫ কে মৃত ঘোষনা করে। অপর আহত ফয়সাল (২৮)কে সেখানে ভর্তি করে। খবর পেয়ে চান্দিনা থানা ও পাশ্ববর্তী বুড়িচংয়ের দেবপুর ফাঁড়ি পুলিশ এগিয়ে এসে গ্রামবাসীর সহায়তায় গোবিন্দপুর গ্রাম থেকে রুবেল (৩৫) নামেন আরো একজন ছিনতাইকারী ঘাতককে আটক করে। এসময় ছিনতাই কাজে ব্যবহৃত পিকআপ ও ছিনতাইকারী চক্রের ২ সদস্য গাড়ি চালক ও সহযোগি চালককে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয় ২টি ধারালো ছুরি, ৩টি মোবাইল ফোন। নিহত তোফাজ্জল হোসেন (৩৫) সিরাজগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার তেলকুপি গ্রামের আবু বক্কর ছিদ্দিক এর ছেলে। আহত ফয়সাল একই উপজেলার রঘুরগাতি গ্রামের লুৎফর রহমান এর ছেলে। তারা সম্পর্কে শ্যালক-দুলাভাই।
এসআই শাহিন কাদির সাংবাদিকদের জানান,মামলা সংক্রান্ত কাজে আমি ৬ ফেব্রুয়ারী রাতে দাউদকান্দি
যাবার পথে রাত আনিুমানিক দেড়টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চান্দিনার গোবিন্দপুর এলাকায় একদল যাত্রীবেশী ছিনতাইকারী একটি পিকআপের কাপড় ব্যবসায়ী দু’যাত্রী কে ছুরিকাঘাত করে মালামাল লুটের সময় তিনি তাকে বহনকরা প্রাইভেটকার থেকে দৃশ্যটি দেখেন। এসময় দেশ প্রেমে উজ্জীবিত হয়ে কর্মস্থলের কথা চিন্তা না কওে নিজের বহক করা গাড়িটি থামিয়ে একাই ছিনতাইকারী দলের উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। তখন অন্যন্য ছিনতাইকারীরা পালিয়ে গেলেও কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ভানী গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে সুজনকে আটক করি। পওে দ্রুত আহতদেও উদ্ধার কওে চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পাশাপাশি মে,াবাইল ফোনে চান্দিনা থানা ও বুড়িচং এর দেবপুর ফাঁড়ি পুলিশকে অবহিত করি। এসময় তারা এগিয়ে এসে কুমিল্লা সদরের দুর্গাপুর গ্রামের বাচ্চু মিয়ার ছেলে রুবে কে গোবিন্দপুর গ্রাম থেকে আটক করে। তিনি আরো বলেন, আসলে পুলিশের ডিউটির কোন সীমা নেই। একজন পুলিশ সদস্য হিসেবে বিগত দিনেও আমি আমার দায়িত্ব পালনে পিছপা হয় নি। গত বৃহস্পতিবার রাতে আমি যখন মহাসড়কে ছিনতাইকারী দলকে দেখছি তখন স্থির থাকতে পারিনি। আমার দায়িত্বপূর্ণ এলাকা না হলেও আমি অন্যায় সহ্য করতে পারি নি। তাই অনেকটা ঝুঁকি নিয়ে ছিনতাইকারী দলকে ধাওয়া করি। একজনকে আটক করতে সক্ষম হই৷ দূর্ভাগ্যদূর্ভাগ্যবশত একজন ব্যবসায়ী ছিনতাইকারীর আঘাতে নিহত হয়। তবে চান্দিনা থানা পুলিশের সহযোগিতায় ছিনতাইয়ে ব্যবহৃত অস্ত্র বাহন আটক করি। তার সাহসিকতায় ছিনতাইকারী আটকের ঘটনায় জেলা পুলিশের ভাবমূর্তি উজ্জল হয়েছে বলেও মনে করেন জেলা পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা। নিজের অনুভূতি ব্যক্ত করে এসআই শাহিন কাদিও আরো বলেন, আমি একটা কথাই বিশ্বাস করি জেলার সাধারণ মানুষদের নিরাপত্তায় টিম কুমিল্লা সর্বদা প্রস্তুত আর আমি টিম কুমিল্লার একজন সদস্য হিসেবে সাধারণ মানুষের জানমালের নিরাপত্তা বিধানে অঙ্গীকারাবদ্ধ।

     আরো পড়ুন....

পুরাতন খবরঃ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
error: ধন্যবাদ!