রোদ চশমা

লাইফ স্টাইল ডেস্ক :

শীত বলতে বলতে তো চলেই গেল। এখন গরমকাল। গরমকাল মানে আমরা বুঝি কটকটে রোদ আর সঙ্গে প্রচণ্ড তাপ। এ গরমে তো আর কাজ থেমে থাকবে না? আপনাকে কাজের তাগিদে বাইরে বের হতেই হবে। প্রচণ্ড রোদ আর ধুলাবালিতে বের হওয়ার আগে যদি থাকে একটি রোদচশমা। তাহলে তো আর কথাই নেই।

সময়ের পরিবর্তনের সঙ্গে মানুষের ফ্যাশনও পরিবর্তন হয়ে থাকে। তবে কিছু বিষয় আছে যেগুলো শুধু ফ্যাশনের ব্যবহারের সঙ্গে শরীরের উপকারও হয়ে থাকে। তেমনি একটি জিনিস হচ্ছে রোদচশমা। একটি রোদচশমা পরলে যেমন আপনাকে ফ্যাশনেবল লাগবে। সঙ্গে আপনার চোখের সুরক্ষা নিশ্চিত করবে সূর্যের অতিবেগুনি ক্ষতিকর রশ্মি থেকে মুক্ত থাকবে আপনার চোখ।

রোদচশমা কেন পরেন এমন প্রশ্ন করেছিলাম তিতুমীর কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র নাজমুল আহসানের কাছে উত্তরে তিনি বলেছিলেন, ‘রোদচশমা আমার কাছে বাড়তি ফ্যাশন।

এটা আমার আউটলুক বৃদ্ধি করে, চেহারায় একটা আলাদাভাব নিয়ে আসে। যার কারণে আমি বাইরে বের হলেই রোদচশমা পরে বের হই।’ বসুন্ধরা শপিংমলের রোদচশমা বিক্রেতা মো. মাহিন বলেন, ‘রোদচশমার চাহিদা সারা বছরই থাকে। তবে গরমে বিক্রি বেশি ভালো থাকে। বর্তমানে তরুণদের হালকা রঙের রোদচশমাগুলোই বেশি পছন্দের। হালকা হলুদ রঙের ডে-নাইট, নীল, সবুজ, বেগুনিগুলোর চাহিদা বেশি। গাঢ় রংগুলোর একটু চাহিদা কম।’

রোদচশমা কেনার আগেই কয়েকটা জিনিস একটু খেয়াল রাখা দরকার। কারণ ভুলভাল কিনলে প্রভাব পড়তে পারে চোখের ওপর। তাই রোদচশমা কেনার আগে সতর্ক থাকুন কিছু বিষয়ে-

ব্র্যান্ড

অবশ্যই আপনাকে একটি ভালো ব্র্যান্ডের রোদচশমা কিনতে হবে। সস্তার রোদচশমা উপকারের বদলে উল্টোটা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। ব্র্যান্ডের রোদচশমাগুলো অবশ্যই ভালো মানের হয়। তাই সঠিক নির্বাচন করাটা অতি জরুরি। ভালো ব্র্যান্ডের রোদচশমার মধ্যে আছে রে-ব্যান, গুচি, সিকে, পুলিশ ইত্যাদি। এখানে ছেলেমেয়েদের আলাদা আলাদা কিনতে পাওয়া যায়।

রোদচশমা কোথায় পাবেন ও দরদাম

রাজধানীর বিভিন্ন শপিং সেন্টারগুলো থেকে শুরু করে ফুটপাত প্রায় সবখানেই পাওয়া যায় রোদচশমা। রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোড, ফার্মগেট, নিউমার্কেট, বসুন্ধরা শপিংমল ও যমুনা ফিউচার পার্কে রয়েছে ভালো মানের রোদচশমার দোকান। এছাড়াও অনলাইনে তো আছেই। এসব জায়গায় রোদচশমার মূল্য ৩০০ থেকে ২০০০ টাকা। নন-ব্র্যান্ড ও বিভিন্ন ব্র্যান্ডের রোদচশমায় দামে পার্থক্য রয়েছে।

চিকিৎসকের পরামর্শ

আপনার চোখে যদি কোনো সমস্যা থাকে তবে অবশ্যই রোদচশমা নেয়ার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। এবং জেনে নিন কি ধরনের চশমা আপনার চোখের জন্য ভালো। তারপরেই রোদচশমা কিনুন।

অনলাইনে রোদচশমা কেনা

আজকাল অনলাইন থেকে রোদচশমা কেনা সহজ। কিন্তু কেনার আগে একবার হলেও পরিচিত দোকান বা চিকিৎসক দেখিয়ে নিতে পারেন। সেটি চোখের জন্য উপযুক্ত কিনা, সেটা জেনে নেয়াই বুদ্ধিমানের কাজ।

হালকা ফ্রেমের রোদচশমা

বেশি ভারি রোদচশমা পরা উচিত নয়। এতে আপনার নাকের ওপর দাগ বসতে পারে। বেশিদিন ভারি রোদচশমা পরলে স্থায়ী হতে পারে। তাই চেষ্টা করুন হালকা ফ্রেমের রোদচশমা পরতে।

মুখের সঙ্গে মানানসই

রোদচশমা কেনার আগে মুখের গড়ন বুঝে রোদচশমা কিনুন। যেমন গোলগাল মুখে গোল ফ্রেম ব্যবহার না করে ক্যাটস আই কিংবা এভিয়েটর ফ্রেমের রোদচশমা পরা যেতে পারে। বর্গাকৃতির চেহারায় মেটালিক ফ্রেম অথবা গ্লাসের নিচের অংশ রিমলেস রোদচশমা বেশি মানাবে। হার্ট শেপ চেহারা যাদের তাদের কপাল চওড়া ও চোয়াল সরু থাকে। স্পার্ক টাইপের রোদচশমা বেশি মানায় এসব চেহারার সঙ্গে। তাই গড়ন অনুযায়ী রোদচশমা পরা উচিত।

     আরো পড়ুন....

পুরাতন খবরঃ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
error: ধন্যবাদ!