পরিবারের ৬৩ জনই কোরআনের হাফেজ

অনলাইন ডেস্ক :

পটুয়াখালীর বাউফল ইউনিয়নের বিলবিলাস গ্রামের বাসিন্দা শাহজাহান হাওলাদার। তার পরিবারে ছেলে-মেয়ে, নাতি-নাতনি ও নাতজামাইসহ মোট ৬৩ জন। আর এই ৬৩ জনই কোরআনের হাফেজ। তার পরিবার এলাকার সবার কাছে হাফেজ পরিবার নামে পরিচিত।

মৃত হাজী নূর মোহাম্মদ হাওলাদারের দুই ছেলের মধ্যে ছোট ছেলে শাহজাহান হাওলাদার। ৩ বছর বয়সে মাকে হারান তিনি। ৭ বছর বয়সে বাবাকেও হারান। বাউফল সরকারি কলেজ থেকে ১৯৭১ সালে এইচএসসি পাস করেন তিনি। নিজের পৈতৃক সম্পত্তি ও মামা বাড়ির ৩ একর সম্পত্তি বিক্রি করে ১২টি মাদ্রাসা ও ৩টি মসজিদ নির্মাণ করেছেন তিনি। তার ৬ ছেলে ও ৪ মেয়ে কোরআনের হাফেজ। তাদের বংশধররা এখন হাফেজ হয়ে সংখ্যাটি বাড়িয়ে চলেছেন। ২ বছর আগেও তাদের পরিবারে হাফেজের সংখ্যা ছিল ৫৭ জন। এখন হাফেজদের সংখ্যা হয়েছে ৬৩ জন।
শাহজাহান হাওলাদারের বড় ছেলে হাফেজ মাওলানা মজিবর রহমানের বিয়ে হয় হাফেজা মানসুরার সঙ্গে। তিনি সৌদি আরব প্রবাসী। তার ৩ ছেলে ও ৪ মেয়ের মধ্যে ৬ সন্তানই কোরআনের হাফেজ। তাদের পরিবারে মোট হাফেজের সংখ্যা ৮ জন।
দ্বিতীয় ছেলে হাফেজ মাওলানা নূর হোসেন বিয়ে করেন হাফেজা শামসুন্নাহারকে। তিনি বাউফল বিলবিলাস দারুল কোরআন নুরানী হাফিজিয়া মাদ্রাসার পরিচালক। তার ৩ ছেলে ও ৩ মেয়ের মধ্যে ৫ সন্তান কোরআনের হাফেজ। তার এক মেয়ে জামাইও হাফেজ। তাদের পরিবারে মোট হাফেজের সংখ্যা ৮ জন।
তৃতীয় ছেলে হাফেজ মাওলানা আবু বকর বিয়ে করেন হাফেজা নাছিমাকে। ঢাকার কামরাঙ্গীরচরে দারুল আকরাম নামে একটি মাদ্রাসা পরিচালনা করছেন তিনি। তার ২ ছেলে ও ৩ মেয়ের মধ্যে ৩ জন হাফেজ। এক মেয়ে জামাইও হাফেজ। তাদের পরিবারে মোট হাফেজের সংখ্যা ৬ জন।
চতুর্থ সন্তান হাফেজ ইব্রাহীম বিয়ে করেন হাফেজা মনিরাকে। হাফেজ ইব্রাহীম বরিশালের হাটখোলায় পাইকারি শস্যের দোকান পরিচালনা করেন। তাদের সংসারে এক মেয়ে ও ৪ ছেলের মধ্যে হাফেজ ৩ জন। এক মেয়ে জামাইও হাফেজ। তাদের পরিবারে মোট হাফেজের সংখ্যা ৬ জন।
পরের সন্তান হাফেজ জোবায়ের বিয়ে করেন হাফেজা নাসরিনকে। তিনি বাউফলে ব্যবসার পাশাপাশি আছিয়া খাতুন মহিলা মাদ্রাসা পরিচালনা করেন। তাদের ২ ছেলে ও ২ মেয়েসহ পরিবারে মোট হাফেজের সংখ্যা ৬ জন।
ছোট ছেলে হাফেজ হুজাইফা বিয়ে করেছেন হাজেরাকে। তিনি ঢাকার বেগম বাজারে ব্যবসা করেন। তাদের সংসারে ২ ছেলে ও ১ মেয়ের মধ্যে ১ জন হাফেজ। তাদের পরিবারে মোট হাফেজের সংখ্যা ২ জন।
শাহজাহান হাওলাদার তার ৪ মেয়ের মধ্যে হাফেজ খাদিজাকে বিয়ে দেন হাফেজ মাওলানা ইমদাদুল্লাহর সঙ্গে। তিনি বাঁশবাড়িয়াতে একটি হাফিজিয়া মাদ্রাসা পরিচালনা করেন। তাদের ৪ ছেলে ও ৫ মেয়ের মধ্যে ৫ জনই হাফেজ। আর ছেলের বউ ও মেয়ে জামাই মিলে ৩ জন হাফেজ। তাদের পরিবারে মোট হাফেজের সংখ্যা ১০ জন।
দ্বিতীয় মেয়ে হাফেজা আসমার বিয়ে হয় মাহমুদুল হাসানের সঙ্গে। তিনি সৌদি আরব প্রবাসী। তাদের সংসারে ৪ ছেলে ও ৫ মেয়ে। তাদের ৬ জনই হাফেজ। আরও ২ মেয়ে জামাই হাফেজ। তাদের পরিবারে মোট হাফেজের সংখ্যা ১০ জন।
হাফেজ খানজার বিয়ে হয় হাফেজ মাওলানা সোলাইমানের সঙ্গে। তিনি ঢাকার চিটাগাং রোডে অবস্থিত দারুল নাজাত হাফিজিয়া মাদ্রাসার পরিচালক। তাদের সংসারে ২ ছেলে ও ৩ মেয়ের মধ্যে ১ জন হাফেজ। এক মেয়ে জামাইসহ তাদের পরিবারে মোট হাফেজের সংখ্যা ৪ জন।

সর্বকনিষ্ঠ মেয়ে হাফেজ আম্মারার স্বামী হাফেজ মাওলানা তালহা। তিনি লালবাগ মাদ্রাসার শিক্ষক। তাদের সংসারে ২ ছেলে ও ১ মেয়ের মধ্যে ১ জন হাফেজ। তাদের পরিবারে মোট হাফেজের সংখ্যা ৩ জন।

শাহজাহান হাওলাদারের ছেলে হাফেজ জোবায়ের হাওলাদার বলেন, আমার বাবার পাঁচ নম্বর ছেলে আমি। আমাদের এই মাদ্রাসা আমেনা খাতুন মহিলা হাফেজখানা। আমরা ৬ ভাই ও ৪ বোনের মধ্যে বড় ভাই সৌদি আরবে জেদ্দায় থাকেন, সেখানে সে মসজিদের ইমাম। তার ৬ সন্তান হাফেজ। আমাদের অন্যান্য ভাই ও বোনরা তাদের সন্তানদের হাফেজ বানিয়েছেন। তারা অনেকে দেশের বিভিন্ন জায়গায় মাদ্রাসা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে আসছেন। আমি এই মাদ্রাসা পরিচালনা করতেছি। এখানকার প্রধান শিক্ষক আমার স্ত্রী। তার হাতে এখান থেকে শত শত মেয়েরা হাফেজ হয়ে এসব অঞ্চলে শিক্ষকতা করছেন।

শাহজাহান হাওলাদার বলেন, আমার পরিবারে ১১ জন নাতজামাই, তারা সবাই হাফেজ। এ ছাড়া আমার পরিবারের ছেলে-মেয়ে, নাতবউসহ ৬৩ জন হাফেজ-হাফেজা রয়েছেন। এর মধ্যে ৪০ জনই আন্তর্জাতিক হাফেজ। আমি সাতখানা কিতাব লিখেছি। সবার কাছে আমার অনুরোধ রইল আপনারা আপনাদের ছেলে-মেয়েদের হাফেজ-হাফেজা বানাবেন। আমার ছেলে ও ছেলের বউরা বিভিন্ন মাদ্রাসায় এখন হাফেজ বানানোর শিক্ষা দিচ্ছেন। মাদ্রাসার জন্য আমি কোনো দান বা সহযোগিতা এখন পর্যন্ত পাইনি। আমার পৈতৃক সম্পত্তি ও মামা বাড়ির সম্পত্তি থেকে তিন একর জমি বিক্রি করে মাদ্রাসা ও মসজিদ করেছি।

আপনি তো হাফেজ না, তারপরও কেন এত হাফেজদের প্রতি আপনার ভালোবাসা? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমার বাবা হাফেজদের খুব ভালবাসতেন। ছোটবেলা থেকেই কেমন যেন হাফেজদের প্রতি আমার ভালোবাসা ও সম্মান বেশি ছিল। ছোটবেলায় বাবা-মা মারা যাওয়ায় আমার পক্ষ থেকে হাফেজ হওয়া সম্ভব হয়নি। এখন বয়স হয়েছে। এ জন্য আমি চিন্তা করেছি আমার সন্তানদের সবাইকে হাফেজ বানাবো। তারা ইসলাম প্রচার করবে।

এ ব্যাপারে ১২ নম্বর বাউফল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম বলেন, শাজাহান হাওলাদার একজন ভদ্র মানুষ ও তার পরিবারের প্রতি কৃতজ্ঞ। তার পরিবারের এই ৬৩ জন হাফেজ আল্লাহর পথে ধাবিত করতে পেরেছেন। এটা নিতান্ত গর্বের বিষয় আমাদের ইউনিয়নের জন্য। তারা হাফেজ হয়েও ব্যবসা-বাণিজ্য ও ভালো টাকা উপার্জন করছে, যা সারা বাংলাদেশে উদাহরণ তৈরি করছে। তারা সবাই খুব স্বাবলম্বী।

     আরো পড়ুন....

পুরাতন খবরঃ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
error: ধন্যবাদ!